Generic selectors
Exact matches only
Search in title
Search in content
Search in posts
Search in pages
Filter by Categories
English
Lead 1
Lead 2
Lead 4
Lead 5
Lead3
অন্য পত্রিকার খবর
অন্য পত্রিকার খবর ১
অন্য পত্রিকার খবর ২
অন্য পত্রিকার খবর ৩
আরও সংবাদ
ইসলাম
বিবিধ
ভিডিও নিউজ
মৌলিক
শেয়ার করে সবাইকে জানিয়ে দিন :

নির্বাচন বর্জন হবে বিএনপির রাজনৈতিক দেউলিয়াত্বের বহিঃপ্রকাশ, নেতাদের শঙ্কা প্রকাশ


প্রকাশিত :২৮.০১.২০১৯

নিউজ ডেস্ক: একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে পরাজয়ের পর বিএনপি রাজনৈতিক সিদ্ধান্তহীনতায় ভুগছে বলে মনে করছেন দলটির স্থায়ী কমিটির একাধিক সদস্য। জাতীয় পর্যায়ে বিপর্যয়ের পর এবার স্থানীয় সরকার নির্বাচনগুলোতে অংশ না নেয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে বিএনপি। যেকোন নির্বাচন থেকে সরে যাওয়াকে রাজনৈতিক দেউলিয়াত্বের প্রকাশ বলেও শঙ্কা প্রকাশ করছেন দলটির নেতারা।

বিএনপির দুরবস্থাকে স্বল্পকালীন সংকট হিসেবে দাবি করেছেন দলটির স্থায়ী কমিটির সদস্য মওদুদ আহমেদ। তিনি বলেন, বিএনপি যে রাজনৈতিকভাবে সংকটে পড়েছে-এটি অস্বীকার করার কোন উপায় নেই। এটির জন্য দলের প্রত্যেক সিনিয়র নেতা কম-বেশি দায়ী। আমরা হামলা-মামলা, ব্যবসা-বাণিজ্য বাঁচানোসহ জেল-জরিমানার ভয়ে রাজপথে নামেনি। বিএনপি রাজপথ-বিমুখ হয়েছে সঠিক নেতৃত্বের অভাবে। আন্দোলনের সময় নির্ধারণ করতে না পারাটাই তো আমাদের জন্য চরম ব্যর্থতার বিষয়। ‘ঈদের পর আন্দোলন’ হবে-এমন কাল্পনিক রাজনৈতিক কর্মসূচি থেকে বিএনপিকে বের হয়ে আসতে হবে। একটা রাজনৈতিক দল হিসেবে বিএনপিকে প্রতিটি নির্বাচনে অংশ নিতে হবে। জয়-পরাজয় মুখ্য বিষয় নয়। নির্বাচনে ভরাডুবির ভয় করলে তৃণমূল বিএনপি নেতৃত্বশূন্য হয়ে পড়বে। নির্বাচন বর্জনের ধারাবাহিকতা বজায় থাকলে বিএনপি শুধুমাত্র রাজধানীকেন্দ্রীক রাজনৈতিক দল হিসেবে টিকে থাকবে। যা আমাদের কাম্য নয়। লন্ডন থেকে সিদ্ধান্ত এসেছে স্থানীয় নির্বাচন না করার। আমার মনে হয় বিষয়টি পুনর্বিবেচনা করা উচিত। রাজনীতি ও নির্বাচন একে অপরের পরিপূরক।

বিষয়টিকে নিজের মত ব্যাখ্যা করে দলের আরেক স্থায়ী কমিটির সদস্য মাহবুবুর রহমান বলেন, বলতে দ্বিধা নেই, বিএনপির দুর্দশা ও দুরবস্থার জন্য আমরাই দায়ী। প্রবাস থেকে পরিবার চালানো গেলেও বৃহৎ একটি রাজনৈতিক দল পরিচালনা করা সম্ভব নয়। আসন্ন স্থানীয় সরকার নির্বাচনগুলোতে বিএনপির অংশগ্রহণ নয় বলে লন্ডন থেকে নির্দেশ দিয়েছেন তারেক রহমান। কিন্তু বাস্তবে হবে তার উল্টা। এই নির্বাচনগুলোতে বিএনপি অংশ না নিলে দলীয় কর্মীরা দলে দলে অন্য রাজনৈতিক দলে যোগ দিয়ে নির্বাচন করবেন। স্থানীয় নির্বাচন বর্জনের সিদ্ধান্ত বাস্তবায়িত হলে বিএনপি কালক্রমে মুসলিম লীগে পরিণত হওয়ার পথে আরো একধাপ এগিয়ে যাবে। আমরা বিএনপিকে জাদুঘরে দেখতে চাই না। আমরা বিএনপিকে মাঠের রাজনীতিতে চাই। গণতান্ত্রিক প্রক্রিয়ার মধ্যে দিয়ে বিএনপির উত্থান-পতন যাই হোক, দলের নেতৃবৃন্দ এবং দেশবাসী তা মেনে নিবে। রাজনীতি করতে হলে নির্বাচন করতে হবে। আর নির্বাচনে জয়ী হতে হলে সৎ, যোগ্য ও জনপ্রিয় প্রার্থীদের বেছে নিতে হবে। আমাদের মনে রাখা উচিত, জনপ্রিয়তার কাছে দুর্নীতির কোন অবস্থান নেই।

শেয়ার করে সবাইকে জানিয়ে দিন :


Designed By BanglaNewsPost